শাকপুরা চৌমুহনীতে মানুষের নিত্যদিনের সঙ্গী হয়ে উঠেছে যানযট

কর্ণফুলী ডেক্স
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৪ জুলাই, ২০২২
  • ৬৫৮ Time View

শাকপুরা চৌমুহনীতে যানজট মানুষের নিত্যদিনের সঙ্গী।

এমন কোনো দিন নেই যেদিন যানজটে আটকে থাকতে হয় না। কী সকাল, কী বিকেল কিংবা সন্ধ্যা-রাত। কোনো সময়ই যানজট না দেখে ঘরে ফেরে না মানুষ। যানজট যেন তাদের নিত্যদিনের সঙ্গী।

সড়কের অর্ধকে যেন সিএনজি অটোরিকশা, ব্যাটারিচালিত রিকশার স্ট্যান্ড। নির্দিষ্ট জায়গা ছেড়ে মেইন সড়কের দুপাশ জুড়ে এক লাইন দুই লাইন করে সিএনজি অটোরিকশা-ব্যাটারিচালিত রিকশা জায়গা দখল করে আছে। যে কারণে প্রতিদিন যানজটের কবলে পড়তে হয় মানুষকে। ঘন্টার পর ঘন্টা সড়কের চারদিকে গাড়ির দীর্ঘ লাইন থাকে।

এ যানজটের কারণে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে স্থানীয় ব্যবসায়ী, পথচারীদের। এ ভোগান্তি থেকে কিছুতেই পরিত্রাণ মিলছে না।শাকপুরা বাজারে বিরামহীন। তারপরও কিছুতেই দূর হচ্ছেনা যানজট। কয়েকমাস থেকে চলছে এভাবে। কোনভাবেই সড়কে শৃঙ্খলা ফিরানো যাচ্ছেনা।

সবচেয়ে ব্যস্ততম শাকপুরা চৌমুহনীতে দেখা যায়, সড়কের দুপাশে সিএনজি অটোরিকশা-ব্যাটারিচালিত রিকশা সড়কের উপরে অর্ধেক জায়গা দখল করে যেন স্ট্যান্ড করে আছে। আর সড়কের চারিদিকে গাড়ির দীর্ঘ যানজট।

পথচারী-স্থানীয় ব্যবসায়ীরা এ ধরণের চরম দুর্ভোগ থেকে পরিত্রাণ চান। সড়কে চলাচল করতে পথচারীদের নানান ভাবে অসুবিধা হচ্ছে। সড়কের পাশে যে সকল দোকানপাট রয়েছে ব্যবসা করতে তাদেরও সমস্যা পোহাতে হচ্ছে। তারা জানান, এভাবে দিনদিন চলে আসছে। প্রতিদিন যেন যানজট দীর্ঘ হচ্ছে।

শাকপুরা চৌমুহনীর ব্যবসায়ী ফারুক হোসেন জানান, সড়কের অর্ধেক যেন গাড়ির দখলে চলে গেছে। যেন দেখার কেউ নেই। প্রতিদিন এভাবে চলছেয় গ। ব্যবসা করতে অনেক অসুবিধা হচ্ছে আর রিকশা চালাক দের কিছু বললেই তারা দল বল নিয়ে আমাদের উপরে মারামারি করতে চলে আসে।

আর এক পথচারী বলেন আমি কোনভাবেই সড়ক দিয়ে পার হতে পারছিনা এক পাশ থেকে আরেক পাশে যেতে অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে হয়ছে। একটা জরুরি কাজে আসছি ভয় নিয়ে রাস্তা পারাপার হতে হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

আলহামদুলিল্লাহ অত্যন্ত ভালো একটি কাজে থাকতে পেরে খুবই ভালো লাগছে ০৫/০৪/২০২৪ শুক্রবার বিকাল ৩ ঘটিকায় কাতার চ্যারিটির পক্ষ থেকে ৫০০ পরিবারের মাঝে ঈদ সামগ্রী প্রদান উপহার প্রদান করেন ৬৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জনাব আব্দুল মতিন সাউদ ভাই ও ফুলকুড়ি ইউনিট আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হোসেন ভাই ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সকলেই ছিলেন পাশাপাশি সার্বিক সহযোগিতায়‌ ছিলেন এলাকার সকল ছোট ভাইয়েরা। এবং এই ঈদ সামগ্রীর আয়োজক ছিলেন আমজাদ হোসেন বাবলু ভাই এডমিন কাতার চ্যারিটি

পাঁচ শতাধিক পরিবার কে ঈদ উপহার দিলো কাতার চ্যারিটি