বাঁশখালী প্রেম বাজারে প্রতিবাদ সমাবেশ হামলা সাংবাদিক,পুলিশসহ, আহত ১৫

ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধিঃ এম.আর তাওহীদ
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৪ আগস্ট, ২০২০
  • ৯৮৪ Time View

বাঁশখালী প্রেম বাজারে প্রতিবাদ সভায় হামলা সাংবাদিক ও পুলিশসহ আহত ১৫

 

বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আলী আশরাফকে গার্ড অব অনার না দেওয়ার দাবীতে প্রতিবাদ সমাবেশে হামলা চালিয়েছে দুবৃত্তরা।

সোমবার ( ০৩ আগস্ট) বিকেলে বাশঁখালী মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের ব্যানারে বাশঁখালী উপজেলার পুইছড়ি প্রেম বাজারে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

এসময় পুলিশ সাংবাদিকসহ অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন। আহতরা হলেন, বাশঁখালী থানার ওসি তদন্ত মো কামাল হোসেন, এস আই নাজমুল হোসেন, ডেইলি ট্রাইব্যুনাল পত্রিকার চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান তাজুল ইসলাম পলাশ। অন্যদের নাম পাওয়া যায়নি।

জানা যায়, বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর বঙ্গবন্ধুর হত্যার প্রথম প্রতিবাদকারী বীর মুক্তিযোদ্ধা মোলভী ছৈয়দের বড় ভাই মুক্তিযোদ্ধা ডা: আলী আশরাফকে গার্ড অব অনার না দেওয়ার প্রতিবাদে প্রেম বাজারে এক প্রতিবাদ সভা ডাকা হয়। সেখানে বিভিন্ন মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তানসহ আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলো। বিকেলে সভা শুরু হলে অতর্কিত হামলা চালায় দুবৃত্তরা। এসময় পুলিশ সাংবাদিকসহ অন্তত ১৫জন আহত হয়।

জানা গেছে, গত ২৬ জুলাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যার প্রথম প্রতিবাদকারী বীর মুক্তিযোদ্ধা ও চট্টগ্রাম যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মৌলভী সৈয়দ আহমদের বড় ভাই মুক্তিযোদ্ধা ও বাঁশখালী থানা আওয়ামী লীগের বর্তমান কমিটির শ্রম সম্পাদক ডা. আলী আশরাফ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। পরদিন ২৭ জুলাই ২০২০ রাষ্ট্রীয় সম্মাননা গার্ড অব অনার ছাড়াই দাফন করা হয়। এ ঘটনায় চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়।

গত ২৭ জুলাই ২০২০ইং রাত ১০টার দিকে গণমাধ্যমে ডা. আলী আশরাফ মুক্তিযোদ্ধা নন, থানা আওয়ামী লীগের কমিটির কেউ নন এবং বাঁশখালীতে কোনো মুক্তিযুদ্ধ সংঘটিত হয়নি উল্লেখ করে মন্তব্য করেন স্থানীয় সাংসদ মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী। যার কল রেকর্ড ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

এমন মন্তব্যের পর বাঁশখালীজুড়ে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়ে মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী। এসব বিষয় নিয়ে মোস্তাফিজুর রহমানের সমালোচনা করায় মৌলভী সৈয়দের ভাইপো ফারুক আব্দুল্লার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করতে নির্দেশ দেন সাংসদ মোস্তাফিজ। এরপর সাংসদের অনুসারী মোরশেদুর রহমান নাদিম বাদি হয়ে ফারুক আব্দুল্লাহর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

এ বিষয়ে মৌলভী সৈয়দের ভাইপো জহির উদ্দিন বাবর বলেন, আমার বাবা বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা. আলী আশরাফকে গার্ড অব অনার না দেওয়া, বাঁশখালীতে মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে এমপি সাহেবের কটুক্তির প্রতিবাদে শান্তিপূর্ণ সমাবেশ করছিলাম। এ সময় এমপির অনুসারীরা অস্ত্র হাতে আমাদের উপর সন্ত্রাসী হামলা চালায়। এতে আমিসহ স্থানীয় ১০-১২ জন আহত হই। এমপির নগ্ন এসব রাজনীতির প্রতিবাদ করায় আমার ভাই সাংবাদিক ফারুক আব্দুল্লার বিরুদ্ধে এমপি মোস্তাফিজ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে বাঁশখালী থানায় মিথ্যা মামলা করিয়েছে। বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর মৌলভী সৈয়দের পরিবারকে এমপি বাঁশখালী থেকে উৎখাত করতে চায়। আমরা এসব ঘটনায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিচার দাবি করছি।

তিনি বলেন, এ ঘটনায় পূর্ব পুইছড়ির নাম করা ডাকাতরা এ হামলায় অংশ নেন। যাদের বিরুদ্ধে খুন, হত্যা, ডাকাতি, অবৈধ বালু উত্তোলন, চাঁদাবাজিসহ অসংখ্য অভিযোগ আছে। মামলাও আছে ডজন খানেক।

তিনি বলেন, পুলিশের সামনে দা ছুরি রামদা নিয়ে তারা হামলা করে। এসময় আমাদের অনেক কর্মীরা আহত হয়েছেন।

নাম জানাতে অনিশ্চুক ব্যক্তি বলেন, দা ছুরি ছাড়াও কাটা বন্দুকও ছিলো কয়েকজনের কেমরে। তারা বিভিন্ন অপকর্মের সাথে জড়িত।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বিকেলে মরহুম আলী আশরাফকে গার্ড অব অনার না দেওয়াকে কেন্দ্র করে প্রতিবাদ সভা চলছিল। এসময় প্রেম বাজারের দক্ষিণ দিক থেকে ৩০/ ৪০ জনের মতো একদল কাঠিসোটা নিয়ে হামলা করে। পাল্টা জবাব দিতে প্রতিবাদকারীরাও ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে। দুপক্ষের মাঝে প্রায় ঘণ্টা ধরে পাল্ট পাল্টি হামলা চলে। এতে পুরো বাজারে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। পথচারীরা দিকবেদিক ছুটতে থাকে। এসময় বাজারের ব্যবসায়ীরা দোকানপাট বন্ধ করে দেয়।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে বিটিভি চট্টগ্রাম কেন্দ্রের অনুষ্ঠানমালা নিয়ে আলোচনা সমালোচনা ও নানা অভিযোগ উঠেছে। প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে ঈদ আয়োজন। একাধিক শিল্পীদের অভিযোগ জেনারেল ম্যানেজার পরিবর্তন হলেও এই কেন্দ্রটি ‘যে লাউ সেই কদু’ তেই রয়ে গেছে। প্রোগ্রাম ম্যানেজার রোমানা শারমিন ও পিএ সুকুমার বিশ্বাস নিয়ন্ত্রিত চক্রটি এখনো সক্রিয়। বাস্তবে টিভি পর্দায় তার প্রমান মিলেছে, ঈদের দিন বিকেল ৫টা ৩০মিনিটে প্রচারিত ছায়াছবির গান নিয়ে দ্বৈত সংগীতের অনুষ্ঠানটি দেখে। সদ্য বিদায়ী জি.এম নিতাই কুমার ভট্টাচার্যের আমলে সিন্ডিকেটভুক্ত ও অভিযুক্ত বিতর্কিত প্রযোজক ইয়াদ আহমেদকে দিয়ে আবারো ছায়াছবির গান নিয়ে অনুষ্ঠানটি প্রযোজনা করা হয়েছে। অনুষ্ঠানের গান নির্বাচন নতুন তালিকাভুক্ত শিল্পী নির্বাচন এবং যন্ত্রীদের পোষাক দেখলে বুঝা যাবেনা এটি আসলে ঈদের অনুষ্ঠান। এত অযত্ন, এত অবহেলা করে, অনুষ্ঠান করার প্রয়োজন কি? সাউন্ড কোয়ালিটি এতোটাই খারাপ ছিল যে, যার বদনাম শিল্পীদের উপর গিয়ে পড়েছে। এছাড়াও নতুন শিল্পীদের পোষাক এবং গেট আপ দেখলে মনে হবে এটি কোনো গোষ্ঠী ভিত্তিক অনুষ্ঠান। শিল্পী নাজমুল আবেদীন বলেন, বয়স হলে, সিনিয়র হলে সম্মান বাড়ে, কিন্তু এই কেন্দ্রে তার বিপরীত। বিষয়টি খুবই লজ্জাজনক। হয়তো প্রয়োজন ফুরিয়ে গেছে, তাই টিভি কর্তৃপক্ষ ডাকে না।

মুসলমানদের ঈদ উৎসব হলেও ঈদ উপলক্ষে প্রচারিত ছায়াছবির গানের দু’টি অনুষ্ঠানের সংগীত পরিচালনার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সনাতনী সম্প্রদায়ের সংগীত পরিচালককে। এটি নিয়ে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে সুরকার ও সংগীত পরিচালকদের মাঝে। মুসলমানদের মধ্যে এত সুরকার ও সংগীত পরিচালক থাকতে কেনইবা সনাতন ধর্মের লোক দিয়ে অনুষ্ঠান পরিচালনা করলেন। আরো অভিযোগ রয়েছে মুসলমান অনেক শিল্পী ঈদ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহনের সুযোগ পাননি তাদের মধ্যে রয়েছে নাজমুল আবেদীন চৌধুরী, মিয়া মোঃ বদরুদ্দিন, ইফতেখার সাদী, আলম আশরাফ, লুবনা জান্নাত, রুনা পারভীন, পলি শারমিন, ইন্তেখাব আলম মান্না, আখেরুল ইসলাম, আখতার হোসেন কিরন, মুসলিম আলী জনি, শেখ নজরুল ইসলাম মাহমুদ, এস.বি সুমী, দিদারুল ইসলাম, শহীদুর রহমান, বাবুল ইসলাম, হানিফ চৌধুরী, রবিউল হক সহ আরো অনেকেই। এছাড়াও প্রযোজক ইয়াদ আহমেদের ঘনিষ্টজন হিসেবে পরিচিতি উপস্থাপিকাকে দিয়ে উপস্থাপনা করাতে সিনেমা গানের অনুষ্ঠানকি দর্শকদের নিকট গ্রহনযোগ্য হয়ে উঠেনি। এর চেয়েও সুন্দর মার্জিত ভালো উপস্থাপিকা টিভিতে রয়েছে। তাহলে বার বার একই মুখ কেন? এর দুর্বলতা কি?

ইলন শফির এর প্রযোজনায় আনন্দ মেলায় গান নিয়েও শিল্পীদের ক্ষোভ বিরাজ করছে। ২টি দেশের গান করার জন্য রোজার মাসে চট্টগ্রাম শহরের এত সুন্দর জায়গা থাকতে শিল্পীদের কাপ্তাই নিয়ে যাওয়ার প্রয়োজন কি ছিল, শিল্পীরা এটিকে শাস্তি হিসেবে দেখছেন। টিভি হয়েছে ২৬ বছর হবে। এত কষ্ট শিল্পীরা আগে কখনো করেনি। এই গান করতে গিয়ে শিল্পীরা অনেকেই অসুস্থ হয়েছেন। আবার দিন শেষে শিল্পী সম্মানীর চেকও পাননি। এর জন্য প্রযোজক ও প্রোগ্রাম ম্যানেজারের অনভিজ্ঞতাকে দায়ী করেছেন অংশগ্রহনকারী শিল্পীরা। আবার অনেকে এই ঝামেলা এড়াতে অনুষ্ঠানে অংশগ্রহন করেননি। চিত্রনায়ক ফেরদৌস ও চিত্রনায়িকা পূর্ণিমাকে দিয়ে আনন্দ মেলা অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করলেও প্রচার প্রচারনার অভাবে অনুষ্ঠানটি উপভোগ্য হয়ে উঠেনি। আনন্দ মেলা অনুষ্ঠানে দু’টি মৌলিক গান রাখা হলে এমন কি দোষ হতো, সেই প্রশ্নের উত্তর খোঁজেছেন অনেকেই। স্থানীয় শিল্পীদের অংশ গ্রহন বাড়ানো গেলে অনুষ্ঠানটি আরো প্রাণবন্ত হতো।

গীতিকার দিলীপ ভারতী বলেন, পুরো অনুষ্ঠানমালায় একটি আধুনিক গানের অনুষ্ঠান হয়নি। এতে করে গীতিকার, সুরকার, সংগীত পরিচালকরা মৌলিক কাজ থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। আধুনিক গানের প্রতি টিভি কর্তৃপক্ষের এতো উদাসীনতা কেন? সেটি এখনো জানা গেলনা। এছাড়াও এপ্রিল মাসে আধুনিক গানের নিয়মিত সিডিউল ছিলনা অজানা কারণে। তালি জোড়া দিয়ে ধার করা অনুষ্ঠান দিয়ে ঈদ অনুষ্ঠানমালা সাজানোর কোনো কৃতিত্ব নেই। এমনটি অভিযোগ সংস্কৃতি কর্মীদের। প্রতিটি অনুষ্ঠানে একজনকে গ্রন্থনা করার দায়িত্ব দেয়া হলে, একজন করে উপস্থাপক উপস্থাপিকা যুক্ত করলে, মৌলিক গানের অনুষ্ঠানে গীতিকার ও সুরকার এবং সংগীত পরিচালনা যুক্ত করলে প্রচার প্রচারনা যেমন বেশী হতো তেমনি অনুষ্ঠানের মানও বৃদ্ধি পেতো। চট্টগ্রামের সংস্কৃতিকর্মীদের অভিযোগ টিভিতে ইয়াদ আহমেদ ছাড়া প্রযোজক কি আর নেই? ঈদের সব অনুষ্ঠান তাহলে তাকে দিয়ে করানো হবে কেন? প্রোগ্রাম ম্যানেজার রোমানা শারমিন এর ঘনিষ্ঠজন হিসেবে পরিচিত ইয়াদ আহমেদ এর বিরুদ্ধে নারী ও অর্থ কেলেংকারী সহ নানা অভিযোগ রয়েছে। এছাড়াও সদ্য বদলী হওয়া বিতর্কিত জেনারেল ম্যানেজার নিতাই কুমার ভট্টাচার্য সিন্ডিকেট তালিকায় অপকর্মের হোতা হিসেবে ইয়াদ আহমেদ বেশ সমালোচিত। ১৪০ জনেরও বেশি উপস্থাপক উপস্থাপিকা থাকলেও তাদের ডাকা হয়নি। ঘুরে ফিরে কয়েকজন মুখকেই প্রায় দেখা যায় বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালায়। এছাড়াও ঘোষিকারা অভিযোগ করে বলেন, তাদেরকে উপস্থাপনায় রাখা হয়না। ঘোষিকাদেরকে দিয়ে অনুষ্ঠান করালে অনুষ্ঠানের মান বৃদ্ধি পায়। কেননা, উচ্চারন, ড্রেসাপ, গেট আপ এবং সময় সবকিছুর বিষয়ে তারা যথেষ্ট সচেতন। এছাড়াও এই কেন্দ্রে সুশীল সমাজের অনেককে গ্রন্থনাকারী হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হলেও তাদেরকে কাজ কি? তালিকাভুক্তির কাগজ নিয়ে ঘরে বসে থাকার জন্যই কি গ্রন্থনাকারী হয়েছে? কোনো অনুষ্ঠানে তাদের যুক্ত করা হয় না এর যুক্তি কতটুকু।

নাট্যকার অভিনেতা মহসিন চৌধুরী বলেন, ঈদ উপলক্ষে কর্তৃপক্ষ চাইলে চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষায় নাটক প্রচার করতে পারতো, কিন্তু সেটা করেনি। ঈদ উপলক্ষে নাটক প্রচার করা হলেও সেটির সাউন্ড কোয়ালিটি অডিও ভিডিও মানসম্মত ছিলনা। ঢাকা থেকে শিল্পী এনে অনুষ্ঠান করা হলেও বঞ্চিত হয়েছে চট্টগ্রামের অনেক প্রতিভাবান শিল্পী। চট্টগ্রামে তালিকাভুক্তি হননি, এমন অনেক মেধাবী সুন্দর সুন্দর ছেলে মেয়ে রয়েছে, যারা কিনা স্যাটেলাইট চ্যানেলে নিয়মিত অনুষ্ঠান করছেন। সব মিলিয়ে জোড়া তালি মার্কা ঈদ অনুষ্ঠান দর্শকদের সাথে এক ধরনের প্রতারনা। চট্টগ্রাম মিডিয়া ফোরামের সভাপতি আলী নেওয়াজ বলেন, চট্টগ্রাম কেন্দ্রে চট্টগ্রামের শিল্পীরাই বঞ্চিত। তাহলে কেনইবা এত আয়োজন।

চট্টগ্রামের একাধিক শিল্পী, অভিনেতা, গীতিকার, সাংবাদিক, গল্পকার, কবি, নাট্যকার, সংস্কৃতিকর্মীরা অভিযোগ করে বলেন, টিভি’র প্রযোজক ও সহকারীরা সবকিছু করলে এই শহরে আমাদের কাজ কি? এই কেন্দ্রে সব শাখায় তাদের তালিকাভুক্ত করে নেওয়া হোক, তাহলে তারাই আয়োজক, তারাই দর্শক হবে।

প্রশ্নবিদ্ধ বিটিভি চট্টগ্রাম কেন্দ্রের ঈদ অনুষ্ঠানমালা